Sunday, June 16, 2013

সাংবাদিক সম্মেলনে মাওলানা আহমাদুল্লাহ আশরাফ : মুসলমানদেরকে শত্রু বানিয়ে আবার ক্ষমতায় আসার স্বপ্ন কখনো পূরন হবে না



 Press Conference 13 June 2013


১৩ই জুন ২০১৩ বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের সাংবাদিক সম্মেলন




বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের সাংবাদিক সম্মেলনে দলের প্রধান আমীরে শরীয়ত মাওলানা শাহ আহমাদুল্লাহ আশরাফ বলেছেন, দেশ আজ গভীর  অরাজকতায় নিপতীত,  গোটা জাতি আজ দুভাগে বিভক্ত এক ভাগ সর্বশক্তিমান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের প্রতি পূর্ণআস্থা বিশ্বাস স্থাপনকারী ধর্মে বিশ্বাসী মুসলমান আস্তিক আর অপরদিকে আল্লাহর উপর আস্থা-বিশ্বাস পরিত্যাগকারী নাস্তিক সম্প্রদায় আল্লাহ বিদ্বেষী ধর্ম বিরোধীদের পৃষ্টপোষক হচ্ছে দেশের বর্তমান মহাজোট সরকার নাস্তিকদের প্ররোচনায় কুখ্যাত পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে যারা সংবিধানের মূলনীতি হতে সর্বশক্তিমান আল্লাহর উপর পূর্ণ আস্থা বিশ্বাসকে মুছে দিয়ে তদস্থলে ধর্মনিরপেক্ষতা পুনঃস্থাপন করে নাস্তিকতা ও ইসলাম বিদ্বেষ কে উষ্কে দিয়েছে তারা দেশবাসীর মন থেকে আল্লাহকে ভুলিয়ে দিতে চায়

            আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে মাওলানা শাহ আহমাদুল্লাহ আশরাফ কথা বলেন সাংবাদিক সম্মেলনে তাঁর লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন দলের মহাসচিব মাওলানা মুহাম্মাদ জাফরুল্লাহ খান উপস্থিত ছিলেন দলের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী, সহকারী মহাসচিব মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মাওলানা সাজেদুর রহমান ফয়েজী, মাওলানা ফখরুল ইসলাম, মাওলানা আবু জাফর কাসেমী, মাওলানা সুলতান মহিউদ্দীন, মাওলানা হেদায়াতুল্লাহ বাশার, মাওলানা হাফেজ আবু তাহের, মাওলানা আবুল কাসেম কাসেমী, মাওলানা হাফেজ আবুল কাসেম প্রমূখ  

 লিখিত বক্তব্যে মাওলানা আশরাফ আরো বলেন, বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন, “ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়  হযরত হাফেজ্জী হুজুর (রহ.) বলেছেন, “ধর্মনিরপেক্ষতার অর্থ যদি পরধর্ম সহিষ্ণুতা হয়, তাহলে ইসলামই হচ্ছে সবচে বড় ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ তাই আমরা বিশ্বাস করি পরধর্ম সহিষ্ণুতার মর্মে ধর্মনিরপেক্ষতা ইসলাম বিরোধী নয় কিন্তু বর্তমান  সরকারের গৃহিত ধর্মনিরপেক্ষতার চিন্তা-চেতনা বাস্তবতা হচ্ছে আল্লাহর প্রতি বিদ্বেষ পোষণ    ইসলামের  বিরুদ্ধাচরণ  বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী তাই সরকার ধর্মের বিরোধীতা করে গণবিরোধী বলে প্রমাণিত হয়েছে এই ধর্মবিরোধী মহাজোট সরকার দুর্নীতি আর খুন-খারাবী করে দুঃশাসনের বিশ্ব মডেলে পরিণত হয়েছে মিথ্যাচারীতার রাজনীতিতে তারা গোয়েবলস কে হার মানিয়েছে  

 তিনি বলেন, নাস্তিক-ব্লগাররা সাইবার লাইনে আল্লাহ তাঁর রসূল (সা.) বিরুদ্ধে অবমাননাকর অকথ্য বক্তব্য লিখে দেশবাসীর অন্তরে আঘাত দিয়েছে এই দুষ্কৃতির সুস্পষ্ট দলিল-প্রমান থাকা সত্ত্বেও নাস্তিকদের বিচার করা হয় নাই এতে প্রমান হয়, এই সরকার শাহবাগী নাস্তিক-ব্লগারদের গডফাদার ব্লগারদের ইসলাম ঈমান বিদ্বেষী তৎপরতা প্রতিরোধে হেফাজতে ইসলাম দেশ ইসলামের স্বার্থে ঐতিহাসিক ১৩ দফা দাবি পেশ করে এই ১৩ দফা নিছক কোন রাজনৈতিক বা সাম্প্রদায়িক দাবি নয় এটা একটি সার্বজনীন গণদাবীর আন্দোলন

 তিনি বলেন, গত ৫মে শান্তিপূর্ণ ভাবে ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি পালন শেষে শাপলা চত্বরে শান্তিপূর্ণ অবস্থান কালে লাখ লাখ নিরস্ত্র, ক্ষুর্ধাত তৃষ্ণার্ত এবং ইবাদতরত ঘুমন্ত লোকের উপর বিদ্যুৎ বন্ধ করে,  সাংবাদিকদের সরিয়ে, নিরপেক্ষ টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার বন্ধ করে অন্ধকার গভীর রাতে যৌথ  বাহিনী লেলিয়ে দিয়ে দেড় লক্ষাধিক বুলেট বোমা বর্ষণ করতঃ এক মর্মান্তিক বিভীষিকাময় গণহত্যা সংগঠিত করে বর্তমান সরকার ঘটনার নিষ্ঠুরতার বিচারে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার বিবেকবান লোকেরা গত ৫মে রাতের শাপলা চত্বরের ঘটনাকে ৭১-এর ২৫ মার্চের কাল রাত্রি থেকেও ভয়াবহ বলে মন্তব্য করেছেন

 তিনি বলেন, অ্যামেরিকা  টার্কিতে সরকারী বাহিনী কর্তৃক আন্দোলনকারীদের উপর টিয়ারশেল নিক্ষেপ জলকামান ব্যবহারকে বাড়াবাড়ি বলে আখ্যায়িত করেছে  অথচ মে শাপলা চত্বরের নিরস্ত্র আলেম-উলামাদের উপর নির্মম গণহত্যার ঘটনায়  সন্ত্রাস দমনে  মহাজোট সরকারের প্রশংসা করেছে আমেরিকা আমেরিকার ভাষায় আলেম-উলামারা যদি সন্ত্রাসী হয় তাহলে গণহত্যাকারী সরকার অস্ত্রধারী সরকারী ক্যাডার বাহিনীরা কি সন্ত্রাসী নয়?

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার ৫মের ঘটনা সম্পর্কে দেশ-বিদেশে লোকদেরকে বিভ্রান্ত করার প্রচেষ্টায় হেফাজতে ইসলামকে জঙ্গিবাদী ১৩ দফা দাবিকে অন্ধকার যুগের আচরণ বলে মিথ্যা প্রচারণা চালাচ্ছে বাংলাদেশ জন্মের ৪২ বছরের মধ্যে ৩৫ বছর যাবতই সংবিধানের মূলনীতিতে আল্লাহর উপর পূর্ণআস্থা বিশ্বাস উল্লেখ থাকাতে দেশের সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনীতিক এমনকি আন্তসাম্প্রদায়িক এর মধ্যে কোন সমাস্যাই সৃষ্টি হয় নাই

 হেফাজতের ১৩ দফায়
:   আল্লাহর উপর পূর্ণ আস্থা বিশ্বাস সংবিধানে পুনঃ বহাল করা দাবী
 
:   আল্লাহ রাসূল (সা.)-এর প্রতি কটূক্তিকারীদের মৃত্যুদণ্ড দেয়ার দাবী
 
:   ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত কারীদের বিচার করার দাবী
 
:   নারী নির্যাতন বন্ধে শিক্ষা কর্মক্ষেত্রে নিরাপদ পরিবেশ প্রস্তুত করা, বিশেষ করে নারীদেরকে যৌন হয়রানী থেকে রক্ষা করার জন্যই নারীদেরকে শালীনতার সাথে পর্দা পালনের আহ্বান
 
:   সরকার-গৃহীত কোরআন-সুন্নাহ বিরোধী বিজাতীয় নারী নীতি ও শিক্ষা নীতি বাতিল করার দাবী
 
:   ভাষ্কর্য স্থাপনের নামে মূর্তি তৈরীর প্রচলন বন্ধ করা আহ্বান
 
:   গণমাধ্যমে ইসলামী সাংস্কৃতির উপর আক্রমণ বন্ধ করার আহ্বান
 
:   মসজিদের গেটে তালা লাগানোর প্রতিবাদ

:   পার্বত্য চট্টগ্রামকে ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব তিমুরের মত বিচ্ছিন্ন করার গভীর ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সর্তক করা
 
১০ :  কোরআন-হাদীস মুতাবেক বিশ্ব নবী (সা.) সর্বশেষ নবী তাঁর পর আর কোন নবী নেই

নবীর দাবিদার ভন্ড কাদিয়ানীদেরকে অমুসলিম সংখ্যালঘু ঘোষণা করার আহ্বান
 
১১ :  আলেম-উলামাদের ভয়-ভীতি প্রদর্শন, গ্রেপ্তার-নির্যাতন হত্যাকাণ্ড বন্ধ করার দাবী
 
১২ :  গ্রেফতারকৃত আলেম-উলামাদেরকে মুক্তিদানের দাবী
 
১৩ :  দেশের সংখ্যালঘুদের জান-মাল ইজ্জত হেফাজত করে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ক্ষা করার দাবী

হেফাজতের ১৩ দফা বাস্তবায়ন আন্দোলন কি সাম্প্রদায়িক, অগণতান্ত্রিক জঙ্গিবাদ?  

১৩ দফার কোথায় নারী সংখ্যালঘু বিদ্বেষ লুকায়িত?

সরকার একটি মিথ্যাকে বারবার বলে সত্যে প্রামণিত করতে চায় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বিগত ৫মে রাজধানীর শাপলা চত্বরে নাকি কোন লাশ পড়েনি হেফাজতে ইসলাম নাকি তাণ্ডব চালিয়ে কোরআন পুড়িয়েছে, মুসজিদে আগুন দিয়েছে, দোকান, ব্যাংক, অফিস লুটপাট করেছে সব ডাহা মিথ্যা অভিযোগের জবাবে আমাদের প্রশ্ন, হেফাজতের সমাবেশস্থল শাপলা চত্বর থেকে এটা অনেক দূরে, আওয়ামী লীগ অফিসের অনতিদূরে, জাসদ অফিসের প্রায় সম্মূখে হাজার হাজার পুলিশ শত শত দলীয় ক্যাডারের সম্মুখে কারা এই ঘটনা ঘটাতে পারে? ডিজিটাল সরকারের সিসি ক্যামরাগুলো তখন কোথায় ছিলো? ভিডিও ফুটেজগুলো কেন প্রকাশ করা হচ্ছে না
যারা ইসলাম কোরআনের জন্য জীবন দিতে পারে, তারা কখনোই কোরআনে, মসজিদে, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানে আগুন লাগানো লুটপাট করতে পারে না  কারণ তিন পয়সার হক্কুল ইবাদের দায়ে ৭০০ রাকাত মকবুল নামাজ দিয়ে দিতে হবে

            হক্ব কখনো নিশ্চিহ্ন হয় না আলেম-উলামা নবী প্রেমিক মুসলমানদের বিরুদ্ধে অস্ত্র চালিয়ে হত্যা,  নির্যাতন হয়রানী করে আওয়ামী লীগ মুসলমানদের আস্থা হারিয়ে ফেলেছে সরকার শাহবাগী নাস্তিকদের পৃষ্ঠ-পোষকতা করে এবং  নাস্তিক-মুরতাদদের পরামর্শে ইসলাম মুসলমানদের বিরুদ্ধে অবস্থান  নিয়ে দেশকে আজ  আস্তিক-নাস্তিক  তথা মুসলমান আওয়ামী লীগ- দুই ভাগে বিভক্ত করে ফেলেছে  সাধারণ মানুষ এখন আওয়ামী লীগের সাথে সম্পৃক্ত মেয়র প্রার্থীদের ভোট দেয়া তো দূরের কথা তাদের সাথে হাত মিলাতেও রাজি নয় ঈমানদার মুসলিম জনতা নাস্তিকদের দোসর ইসলামের দুশমনদের আর ভোট দিবে না সরকার জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার কারণেই তত্বাবধায়ক সরকার পদ্ধতি বাতিল করেছে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ অপমাণজনকভাবে পরাজয় বরণ করবে, ইনশাআল্লাহ।

 মাওলানা আশরাফ প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনার পিতা একজন মুসলমান ছিলেন আপনিও একজন মুসলিম পরিবারের সন্তান  মুসলমানদেরকে শত্রু মনে করে আপনি যাদেরকে নিয়ে রাজনীতি করছেন, যাদের পরামর্শে চলছেন,  তারা আপনারও শত্রু,  ইসলামেরও শত্রু  ওরা আল্লাহ আল্লাহর রাসূল (সাঃ)-এর দুশমন  ক্ষমতার মসনদ রক্ষা করার জন্য ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিকদের খুশি করতে নিরাপরাধ মুসলমানদের হত্যা করেছেন হেফাজতকে দমন করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন  আপনি ঠাণ্ডা মাথায় চিন্তা করে দেখুন  ক্ষমতা কি চিরদিন টিকে থাকবে?  আপনাকে কী মরতে হবে না?  আপনাকে কি আল্লাহর কাছে বিচারের সম্মূখীন হতে হবে না?  আপনি কি ঈমান নিয়ে মরতে চান না?

তিনি বলেন, হত্যা, জুলুম-নির্যাতন ইসলামের বিরোধীতা বন্ধ না হলে এদেশের কোন ঈমানদার মুসলমানের সমর্থন পাবেন না  আপনিও যদি মনে করেন হেফাজতের ভোট ছাড়াই ক্ষমতায় আসবেন, তাহলে মনে রাখুন,  গুটি কয়েক নাস্তিক-মুরতাদ ছাড়া দেশের সকলেই হেফাযতের লোক সংখ্যাঘরিষ্ঠ মুসলমানদেরকে শত্রু বানিয়ে আবার ক্ষমতায় আসার স্বপ্ন কখনো পূরন হবে না

 মাওলানা আশরাফ আল্লাহ রাসূল (সা.)-এর দুশমন নাস্তিক-মুরতাদদের সমর্থক সহযোগিদের বয়কট এবং তাদের পক্ষে রায় দেয়া থেকে বিরত থাকতে এবং জালিম শাসকের অত্যাচার থেকে পরিত্রাণ পেতে খতমে ইউনুছ, খতমে কোরআন আদায় করে দোয়া অব্যহত রাখার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান


বার্তাপ্রেরক :  সাইফুল ইসলাম সুনামগঞ্জী,  দফরত সম্পাদক, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন