Wednesday, March 9, 2011

সংবিধানের দোহাই দিয়ে ফতোয়া এবং ইসলামী রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হবে কোরআনকে নিষিদ্ধ করার শামিল -শাহ আহমদুল্লাহ আশরাফ


http://www.amardeshonline.com/pages/details/2011/03/06/71026

ঢাকা, রবিবার ৬ মার্চ ২০১১, ২২ ফাল্গুন ১৪১৭,৩০ রবিউল আউয়াল ১৪৩২  

খেলাফত আন্দোলনের কোরআন মিছিল : ফতোয়ার ওপর হাত দিলে সারাদেশে আগুন জ্বলবে

স্টাফ রিপোর্টার
 
বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের আমির মাওলানা শাহ আহমদুল্লাহ আশরাফ বলেছেন, ফতোয়া হচ্ছে ইসলামী জীবনব্যবস্থা। মুসলমানদের ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক লেনদেনসহ প্রতিটি ক্ষেত্রেই শরীয়তের বিধান জানা ও ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলা ফতোয়ার সঙ্গে যুক্ত। কোরআন-সুন্নাহ, ইজমা-কিয়াসের আলোকে নাগরিকদের কোনো জটিল সমস্যার ধর্মীয় সমাধানের নামই ফতোয়া। ফতোয়া ছাড়া কোনো মুসলমান চলতে পারে না। এটা মুসলমানদের সাংবিধানিক ও ধর্মীয় অধিকার। ফতোয়াতে বাধা দেয়ার অর্থ ইসলাম ধর্ম পাালনে বাধা দেয়া। এটা ধর্মপ্রাণ জনতা বরদাশত করবে না। কোরআনের বিরুদ্ধে মতামত দেয়ার অধিকার কারও নেই। সংবিধানের দোহাই দিয়ে ফতোয়া এবং ইসলামী রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হবে কোরআনকে নিষিদ্ধ করার শামিল। ফতোয়ার ওপর হস্তক্ষেপ হলে সারাদেশে আগুন জ্বলে উঠবে। সরকার পতনের একদফার আন্দোলন শুরু হয়ে যাবে।

গতকাল রাজধানীর মুক্তাঙ্গনে কোরআন-সুন্নাহর বিধান ফতোয়া এবং ইসলামী রাজনীতি বন্ধ করার পাঁয়তারার প্রতিবাদে খেলাফত আন্দোলন ঢাকা মহানগর আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিলপূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মহানগর আমির মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন দলের মহাসচিব মাওলানা মুহাম্মদ জাফরুল্লাহ খান, মুহাম্মদ আ’জম খান, মাওলানা সাজেদুর রহমান ফয়েজী, মাওলানা ফখরুল ইসলাম ও খেলাফত ছাত্র আন্দোলনের সভাপতি মাওলানা সুলতান মহিউদ্দিন প্রমুখ। সমাবেশ শেষে ফতোয়া ও ইসলামী রাজনীতি বন্ধ করার পাঁয়তারার প্রতিবাদে রাজধানীতে একটি পবিত্র কোরআন হাতে নিয়ে গণমিছিল বের করা হয়। মিছিলটি জিরো পয়েন্ট, জাতীয় প্রেস ক্লাব, পল্টন মোড় হয়ে বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে এসে সমাপ্ত হয়।

মুফতি আমিনী : এদিকে ইসলামী আইন বাস্তবায়ন কমিটির আমির ও ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মুফতি ফজলুল হক আমিনী বলেছেন, ইসলাম, ফতোয়া, কোরআন নিয়ে সরকার যে সর্বনাশা খেলায় মেতে উঠেছে তা অত্যন্ত ভয়াবহ। এদেশকে স্পেন বানানোর পদক্ষেপ স্পষ্ট হচ্ছে। ওলামা মাশায়েখ ও দ্বীনদাররা মিলে যদি এই সর্বনাশা খেলা বন্ধ করা না যায় তাহলে আমাদের ও দেশের ভাগ্যে বড় দুর্দিন অপেক্ষা করছে। বড় ধরনের প্রতিরোধ ছাড়া এই সর্বনাশা ও ধ্বংসাত্মক খেলা বন্ধ করা যাবে না। প্রয়োজনে লাগাতার হরতাল ডেকে এই ইসলাম বিধ্বংসী ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে। তিনি গতকাল খুলনা নিরালার আল মারকাজুল ফিকহী ইসলামী প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

নেজামে ইসলাম পার্টি : নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি মাওলানা আবদুর রকিব অ্যাডভোকেট ও মহাসচিব মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী এক বিবৃতিতে বলেন, ইসলাম সম্পর্কিত যাবতীয় জিজ্ঞাসার উত্তর ফতোয়া সম্পর্কে একশ্রেণীর মানুষের নেতিবাচক মনোভাব সংবিধান পরিপন্থী। কারণ সংবিধান ধর্ম পালনে সবাইকে অধিকার দিয়েছে।

খেলাফত মজলিস : খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা শফিক উদ্দিন বলেছেন, ইসলামী জীবন বিধানের অবিচ্ছেদ্য অংশ ফতোয়া নিষিদ্ধ করার ক্ষমতা কারও নেই। আওয়ামী লীগ আদালতের ঘাড়ে বন্দুক রেখে ফতোয়া নিষিদ্ধের চেষ্টা করলে সর্বস্তরের মানুষ একদফার আন্দোলন শুরু করতে বাধ্য হবে।